শুক্রবার , জুন 22 2018
কয়েক পদে পান্তা-ইলিশ

বৈশাখী আমেজে বাঙ্গালির ঐতিহ্যবাহী কয়েক পদে পান্তা-ইলিশ

বাঙ্গালিদের ঐতিহ্যবাহী খাবার হলো পান্তা-ইলিশ। তবে সময়ের ব্যবধানে ঐতিহ্যবাহী এখাবার হারিয়ে যেতে বসেছে। তার পরেও গ্রাম বাংলার কিছু পরিবারে এখনও পান্তা খাওয়ার প্রচলন দেখা যায়। তবে বাংলা বছরের প্রথম দিনটিকে বরন করার জন্য উৎসব মুখোর পরিবেশেই আমরা পান্তা-ইলিশ খেয়ে থাকি। তাই আজ থাকছে বৈশাখী আমেজে বাঙ্গালির ঐতিহ্যবাহী কয়েক পদে পান্তা-ইলিশ।

উপকরন সমুহঃ-

মসুর ডালের চচ্চড়ির জন্যঃ

  • মসুর ডাল = ১ কাপ
  • পেঁয়াজ কুচি = ১ কাপের একটু কম
  • কাঁচা মরিচ ফালি = ৩/৪ টি
  • আস্ত কাঁচা মরিচ = ৪ টি
  • রসুন কুচি = ২/৪ চা চামচ
  • গরম পানি = ৩ কাপ
  • টমেটো কুচি = আধা কাপ
  • তেজপাতা = ১ টি
  • লবন = স্বাদ মত এবং
  • সরিষার তেল = পরিমান মত।

মসুর ডালের চচ্চড়ির তৈরি পদ্ধতিঃ

প্রথমে ডাল ধুয়ে আধা ঘণ্টার জন্য ভিজিয়ে রাখুন। আধা ঘণ্টা পরে আস্ত কাঁচা মরিচ ও টমেটো কুচি বাদে সব উপকরন দিয়ে ডাল মেখে ১ ঘণ্টা মেরিনেটের জন্য রেখে দিন।

১ ঘণ্টা পরে একটি পাত্রে ৩ কাপ গরম পানির সাথে মিডিয়াম আচে মেরিনেট করা ডাল দিয়ে দিন। পানি শুকিয়ে এলে আস্ত কাঁচা মরিচ ও টমেটো কুচি দিয়ে কিছুক্ষন নেড়ে নামিয়ে রাখুন।

শুকনা মরিচের ভর্তার জন্যঃ

  • বড় শুকনা মরিচ = ১৬/১৭ টি
  • পেঁয়াজ কুচি = ২ কাপ
  • লবন = স্বাদ মত এবং
  • সরিষার তেল = পরিমান মত।

শুকনা মরিচ ভর্তার তৈরি পদ্ধতিঃ

প্রথমে প্যানে গরম তেলে শুকনা মরিচ ভেঁজে নিন। তারপর সব উপকরন দিয়ে ভালোভাবে চটকিয়ে ভর্তা তৈরি করে নিন।

চ্যাপা শুঁটকির ভর্তার জন্য:

  • চ্যাপা শুঁটকি = ৮ টি
  • পেঁয়াজ কুচি = ২ কাপ
  • কাঁচা মরিচ = ১২/১৪ টি
  • রসুনের কোয়া = ৭/৮ টি
  • লবন = স্বাদ মত এবং
  • সরিষার তেল = পরিমান মত।

শুঁটকি ভর্তার তৈরি পদ্ধতিঃ

প্রথমে শুঁটকি ভালোভাবে ধুয়ে পানি ঝারিয়ে নিন। তারপর গরম প্যানে সামান্য তেলের সাথে শুঁটকি দিয়ে ভাজে নিন। এবার শিলপাটায় সব উপকরন দিয়ে ভালোভাবে বেঁটে ভর্তা তৈরি করে নিন।

মুচমুচে ইলিশ ভাজার জন্যঃ

  • ইলিশ মাছের বড় টুকরা = ৬/৭ টি
  • কাঁচা মরিচ বাটা = ১ চা চামচ
  • আদা-রসুন বাটা = আধা চা চামচ
  • সাদা সিরকা = ২ টেবিল চামচ
  • ময়দা = ৩ টেবিল চামচ
  • হলুদ গুড়া = আধা চা চামচ
  • লবন = স্বাদ মত এবং
  • তেল = পরিমান মত।

তৈরি পদ্ধতিঃ

প্রথমে মাছ ধুয়ে পানি ঝারিয়ে নিন। তারপর ময়দা বাদে সব উপকরন দিয়ে মেখে ৩০ মিনিট মেরিনেটের জন্য রেখে দিন।

৩০ মিনিট পরে ময়দার মধ্যে মাছ গড়িয়ে গরম ডুবো তেলে মুচমুচে করে ভেঁজে উঠিয়ে নিন।

পান্তা ভাতের জন্যঃ

  • রান্না করা ভাত = পছন্দ মত এবং
  • পানি = ভাতের ডাবল

পান্তা ভাত তৈরি পদ্ধতিঃ

প্রথম দিন রাতে রান্না করা ভাতে পানি দিয়ে ভিজিয়ে রাখুন। পরের দিন সকালে একবার ধুয়ে নতুন পানি দিয়ে পরিবেশন করুন (আপনি চাইলে নাও ধুতে পারেন)।

পরিবেশনের জন্যঃ

  • কাঁচা মরিচ = ৪/৫ টি
  • আদা বাটা = পরিমান মত (আপনি চাইলে নাও দিতে পারেন)
  • পেঁয়াজ কুচি = ১/২ টেবিল চামচ
  • চার ফালি করে কাঁটা পেঁয়াজ = ১ টি
  • লবন = স্বাদ মত এবং
  • সরিষার তেল = পরিমান মত।

পরিবেশনঃ

প্রথমে একটি প্লেটে পান্তা ভাত দিয়ে দিন। তারপর কাঁচা মরিচ, পেঁয়াজ কুচি, চার ফালি করে কাঁটা পেঁয়াজ, আদা বাটা, তৈরি করে রাখা মসুর ডালের চচ্চড়ি, শুকনা মরিচের ভর্তা, চ্যাপা শুঁটকির ভর্তা, মুচমুচে ইলিশ ভাজা, লবন ও সরিষার তেল দিয়ে পরিবেশন করুন পান্তা-ইলিশ।

ব্যাস তৈরি হয়ে গেলো বৈশাখী আমেজে বাঙ্গালির ঐতিহ্যবাহী কয়েক পদে পান্তা-ইলিশ।

নোটঃ

আপনি চাইলে এর সাথে টাকি মাছের ভর্তা, আলুর ভর্তা, ভাপা ইলিশ, আম কাসুন্দি দিয়েও পরিবেশন করতে পারেন।

আমার কথা: আমি মুন্নি, আপনাকে ধন্যবাদ জানাচ্ছি – মুন্নি’স কিচেন ভিজিট করার জন্য (নিজে কিছু করার ইচ্ছে থেকেই এর যাত্রা শুরু)। যদি আমার রেসিপি ভালোলেগে থাকে, তাহলে অবশ্যই আমার ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করবেন (অনেক খুশী হবো), আর আমার জন্য দোয়া করবেন।

আমার ইউটিউব চ্যানেল সাবস্ক্রাইব করতে এখানে ক্লিক করুন।

Check Also

মজাদার মাশরুম ফ্রাই

ঘরে বসে ঝটপট তৈরি করে ফেলুন দারুন স্বাদের স্বাস্থ্যকর মাশরুম ফ্রাই

আমরা রোজার মাসে স্বাস্থ্যকর খাবার বেশি খেয়ে থাকি। তাই সেহরিতে স্বাস্থ্যকর খাবার হিসেবে তৈরি করতে …

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।